চুম্বনে দারুণ পারদর্শী হতে হলে…

অঅ-অ+

একটি দারুণ কার্যকর চুম্বন ভালো কিছু বয়ে আনে। উত্তেজনাপূর্ণ চুম্বনে পারদর্শী হতে হলে অবশ্যই নিয়ন্ত্রণ প্রয়োজন। নর-নারীর প্রেম নিবেদনের সবচেয়ে আবেগপূর্ণ একটি আচরণ ; চুম্বন। কাজেই বিষয়টি ফেলনা নয় এবং এ নিয়ে গবেষণা চলেছে বিস্তর। এবার গবেষকদের পরামর্শ আপনার জন্য।
ধরে নিন আপনি এবং আপনার প্রেমিকা দুজন দুজনকে আবেগে জড়িয়ে ধরে চুম্বন করছেন এবং আপনি আরেকটু গভীরভাবে একে উপভোগ করতে চান। এখন কী করতে পারেন? দুই হাত দিয়ে প্রেমিকার অপরূপ মুখটিকে আরো নিজের কাছে টেনে আনুন এবং চুম্বনের কাজটিতে আপনার কর্তৃত্ব নিন। এর বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যাটা হলো, যখন আপনি দুই হাত দিয়ে তার মুখের দুই পাশ জড়িয়ে ধরবেন, তখন প্রেমিকা আপনার দুই হাতের উষ্ণতা পাবেন এবং এর মাধ্যমে তার ওপর আপনার ভর চাপাতে পারবেন এবং সে আপনাকে গ্রহণ করে নেবে।
এই ভালোবাসাবাসি করার সময় আপনি কিছু গলার স্বরের বা অস্ফূট শব্দের কিছু খেলা করতে পারেন। এতে আপনি এবং সেও একই সঙ্গে চুম্বনে আকৃষ্ট হবেন। সত্যিকার অর্থে দুজনের অস্ফূট এই শব্দ প্রকাশ করে যে, দুজন দুজনের ওপর যথেষ্ট প্রভাব ফেলছেন। এতে দুজন আরো আবেগী এবং সাহসী হয়ে উঠবেন। এ ব্যাপারে নারীরা দারুণ আবেগপূর্ণ হন এবং তাদের অহংবোধ কাজ করে।
‘প্র্যাকটিস মেকস আ ম্যান পারফেক্ট’, অর্থাৎ যারা নতুন চুম্বন করতে যাচ্ছেন তারা একটি কাজ করতে পারেন। আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে চুমু খাওয়ার ভাবভঙ্গি কেমন হয় তা পরীক্ষা করে দেখতে পারেন। আরো বেশি নিখুঁত হয়ে প্রেমিকার সামনে দাঁড়ানো যাদের জন্য খুবই জরুরি, তারা নিজের হাতে সঙ্গে এ কাজটি করে দেখতে পারেন। ভেবে নিন, অভিনয় করছেন কিন্তু খুবই সিরিয়াস। চোখ বন্ধ করে এ কাজ করে দেখু্ন আপনার ঠোঁটের উষ্ণতা প্রেমিকার ঠোঁটে কেমন লাগতে পারে। এতে অবশ্যই আপনি অনেক আত্মবিশ্বাস এবং কৌশলগুলো আত্মস্থ করতে সমর্থ হবেন।
নারী দেহে স্পর্শকাতর যতো অঙ্গের মিলন ঘটেছে। আর এই দেহটি চুম্বন গ্রহণের জন্য আদর্শ। প্রেমিকার ওষ্ঠ, কান, ঘাড়ে আপনি নিঃসঙ্কোচে চুমু খেতে পারবেন এবং এর বিপরীতে তার আচরণেই আপনি প্রেমিকার হৃদয়ে ঢেউগুলো আছড়ে পড়ার শব্দ শুনতে পাবেন।
তবে মনে রাখবেন, গভীর চুম্বনের সময় অর্থাৎ ফ্রেঞ্চ কিসের সময় নব্য চুম্বনকারীদের খেয়াল রাখতে হবে যে, প্রেমিকার ওষ্ঠ বা তিনি যেনো আহত না হন। আর এ জন্য মনের নিয়ন্ত্রণ প্রয়োজন। ফ্রেঞ্চ কিসের অর্থ এই নয় যে, শক্তি প্রয়োগ করে চুমু খাওয়া হয়। এক পাশ হয়ে চুম্বন করতে করতে অন্য পাশ ফিরতে খেয়াল রাখবেন আপনার নাক যেনো তার নাকের সঙ্গে ধাক্কা না খায়।
একজন উত্তম চুম্বনকারীর বৈশিষ্ট্য প্রকাশ পায় তার উষ্ণ সেক্সি নিঃশ্বাস থেকে। অবশ্যই আপনার দাঁত মাজা থাকতে হবে, মুখে পেঁয়াজ, রসুন বা তামাকের গন্ধ থাকা চলবে না। পারলে অবশ্যই মাউথ ওয়াশ ব্যবহার করে নেবেন। কিছু মিন্ট ব্যবহার করবেন খাওয়ার পর।
ফ্রেঞ্চ কিসাররা আসলে চুম্বনে পারদর্শী। তিনি জানেন চুম্বনের সময় তার জিহ্বা কিছু ছোটখাটো চমক দেখাতে পারে। পারদর্শী চুম্বনকারীর চুম্বনের সময় তার চাল-চলন বোঝার চেষ্টা করেন প্রেমিকা। প্রেমিকাকে অল্প-স্বল্প চুম্বন করুন, তার চোখের দিকে তাকিয়ে থাকুন এবং তার মুখ বা চুল নিয়ে খেলা করুন। প্রেমিকা চোখ মেলে তাকালে দেখবেন, তার চোখে আপনার ব্যক্তিত্বের প্রতি চৌম্বক আকর্ষণ ফুটে উঠেছে। তার চোখ আর মুখখানা একবার বর্ষার বৃষ্টিতে ভিজে উঠছে, আবার ঝলমলে রোদ্দুরে শুকোচ্ছে…বারবার।
সূত্র : ইন্ডিয়া টাইমস

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *